১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম ২০২৪।

সোলার প্যানেল হলো এমন একটি ডিভাইস যা সূর্যের আলোক শক্তিকে বিদ্যুৎ শক্তিতে রূপান্তরিত করে। অর্থাৎ এই ডিভাইসের মাধ্যমে সূর্যের আলো বিদ্যুতে পরিণত হয়। সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহারের বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। বিশেষ করে লোডশেডিং কমাতে। প্রচন্ড গরমে লোডশেডিং এর অস্বস্তিতে স্বস্তি দিতে পারে সৌর বিদ্যুৎ।

জীবনযাত্রাকে সহজ করার জন্য আমরা নানা ধরনের ইলেকট্রিক ডিভাইস ব্যবহার করি। এই ডিভাইস গুলোকে চালাতে প্রয়োজন হয় বিদ্যুৎ। অফিস আদালত, কলকারখানা ও বাড়ি ঘরে বিদ্যুতের চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে সাথে এই চাহিদা আরো বৃদ্ধি পাবে। সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহারে ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা অনেকটাই পূরণ হবে বলে আশা করা যায়।

সৌর বিদ্যুতের সুবিধা পেতে চাইলে প্রথমেই লাগবে একটা সৌর প্যানেল। কোন সোলার প্যানেল ভালো এবং দাম কত এই বিষয়ে অনেকেই জানতে চায়। আপনি যদি সোলার প্যানেল কিনতে চান তাহলে নিশ্চয় ভালোটাই কিনবেন। আমাদের দেশের মার্কেটগুলোতে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সোলার প্যানেল পাওয়া যায়। এগুলো থেকে যাচাই-বাছাই করে ভালোটা চিনে নিতে হবে। এই পোস্টে সোলার প্যানেল কোনটা ভালো এবং দাম কত এই দুটি বিষয় বিস্তারিত জানিয়েছি, আশা করি আপনাদের উপকারে আসবে।

১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম

১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম

বাজারে পলি ক্রিস্টালিন ও মনো ক্রিস্টালিন এই দুই প্রযুক্তির সোলার প্যানেল পাওয়া যায়। মনো ক্রিস্টালিন সোলার প্যানেলের দাম একটু বেশি। তবে এর বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। মনো ক্রিস্টালিন সোলার প্যানেল তুলনামূলকভাবে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করে। সোলার প্যানেল সূর্যের আলোকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ তৈরি করে তাই পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ভালো সান লাইট প্রয়োজন। কুয়াশা, মেঘলা আকাশ এবং বিকেল বেলা সূর্যের আলো কম থাকে। মনো ক্রিস্টালিন সৌর প্যানেল কম আলোতে বিদ্যুৎ তৈরি করতে পারে।

ভালো সুবিধা পেতে একটু বেশি দাম দিয়ে মনো ক্রিস্টালিন সোলার প্যানেল কিনতে পারেন। আসলে সৌর প্যানেল প্রতি ওয়াট হিসেবে দাম ধরে বাজারে বিক্রি করা হয়। আপনি কত ওয়াট সোলার প্যানেল কিনবেন তার সাথে প্রতি ওয়াট এর দাম গুণ করলে মোট দাম পেয়ে যাবেন। কোম্পানি ভেদে দাম ভিন্ন হয়, সাধারণত প্রতি ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম ৪৫ টাকা থেকে শুরু করে ৭৫ টাকা পর্যন্ত হয়। ১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম পরে ৪৫,০০০ থেকে ৭৫,০০০ টাকা।

আরো পড়ুন গর্ভকালীন বা মাতৃত্বকালীন ভাতা পাওয়ার নিয়ম।

জার্মানির বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সোলার প্যানেল আমাদের বাজারে পাওয়া যায়। এগুলোর প্রতি ওয়াট ১০০ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। ১০০০ ওয়াট জার্মান সোলার প্যানেলের দাম ৮০,০০০ থেকে ১২০০০০ পর্যন্ত হয়। সোলার প্যানেলের সাথে পাবেন ২০ থেকে ২৫ বছরের ওয়ারেন্টি। আপনি যদি দীর্ঘমেয়াদী অনগ্রিড অথবা হাইব্রিড সোলার সিস্টেম করেন তাহলে জার্মান টেলসান ব্ল্যাক মনো হাফ কার্ট ২৪ ভোল্ট সোলার প্যানেল নিতে পারেন।

1kw বাণিজ্যিক সোলার সিস্টেম কত টাকা

১ কিলোওয়াট বলতে ১০০০ ওয়াট বুঝায়। বাণিজ্যিক সোলার সিস্টেম করতে চাইলে আপনাকে AC সোলার সিস্টেম করতে হবে। সোলার সিস্টেম দুই ধরনের হয়, এসি ও ডিসি। ডিসি সোলার সিস্টেম সরাসরি কারেন্ট দিবে। আমরা সাধারণত যে ইলেকট্রিক ডিভাইসগুলো ব্যবহার করি সেগুলো এসি কারেন্ট দিয়ে চলে। ডিসি সোলার সিস্টেম দিয়ে চলবে সব ধরনের ডিসি ইলেকট্রিক ডিভাইস। এই সিস্টেমে এসি ইলেকট্রিক ডিভাইস চলবে না।

এসি সোলার সিস্টেম দিয়ে চলবে সব ধরনের এসি ইলেকট্রিক ডিভাইস। ডিসি সৌর বিদ্যুৎ কে এসি বিদ্যুতে রুপান্তরিত করতে একটি ইনভার্টার লাগে। তাই এসি সিস্টেমে খরচ একটু বেশি হয়। বি-গ্রেডের সোলার প্যানেল দিয়ে করলে খরচ অনেকটা কমে যাবে। একটু বেশি খরচ করে এ-গ্রেডের সোলার প্যানেল দিয়ে বাণিজ্যিক সোলার সিস্টেম করা উচিত। এতে দীর্ঘমেয়াদি ভালো সার্ভিস পাবেন। ১ কিলোওয়াট বাণিজ্যিক সোলার সিস্টেম করতে মোট ৯০,০০০ থেকে ১৩০০০০ টাকা খরচ হয়।

১০০০ ওয়াট রহিমা আফরোজ সোলার প্যানেল

বাংলাদেশের মার্কেটে রহিমা আফরোজ একটি পরিচিত ব্রান্ড। ভালো মানের আইপিএস ও ব্যাটারি প্রস্তুত করে এই কোম্পানি। পাশাপাশি এরা সোলার প্যানেল তৈরি করে। মার্কেটে তাদের এসব পন্যের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

গ্রাম অঞ্চলের বাসা বাড়িতে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অফ গ্রিড সোলার সিস্টেম লাগানো হয়। অধিকাংশ অফ-গ্রিড সোলার সিস্টেম ২০০ থেকে ৫০০ ওয়াটের মধ্যে হয়। আপনি যদি ১০০০ ওয়াটের মধ্যে সোলার সিস্টেম ইন্সটল করতে চান রহিমা আফরোজ কোম্পানির সোলার প্যানেল ব্যবহার করতে পারেন। কারণ এই প্যানেলগুলো দামে সাশ্রয়ী এবং মানে ভালো। সাথে পাচ্ছেন ২০ বছরের ওয়ারেন্টি।

অনেকেই ইন্টারনেটে রহিমা আফরোজ সোলার প্যানেলের দাম জানতে চায়। রহিমা আফরোজ কোম্পানির প্রতি ওয়াট সৌর প্যানেলের দাম পরে ৪৫ থেকে ৫৫ টাকা। ১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম পরবে ৪৫,০০০ থেকে ৫৫,০০০ টাকা।

আমাদের শেষ কথা

সোলার প্যানেল ব্যবহারের সময় কোন যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দিলে যে দোকান থেকে কিনেছিলেন সেখানে যোগাযোগ করুন। ওয়ারেন্টি কার্ড যত্ন সহকারে রাখতে হবে যেন নষ্ট না হয় বা হারিয়ে না যায়।

এই পোস্টের মূল বিষয় হলো বাংলাদেশে ১০০০ ওয়াট সোলার প্যানেলের দাম কত। আশাকরি পোস্টটি পড়ে বিষয়টি জানতে পেরেছেন। সৌর প্যানেল কেনার আগে দেখে শুনে ভালো ভাবে যাচাই বাছাই করে কিনবেন। অধিক লাভের আশায় অনেক ব্যবসায়ী নিম্নমানের সৌর প্যানেল কেনার পরামর্শ দিতে পারে। এসকল অসাধু ব্যবসায়ী থেকে সাবধান থাকুন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *